ইসলামিক ফাউণ্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের দূর্নীতিবাজ পরিচালক তৌহিদুল আনোয়ারের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইসলামিক ফাউণ্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের জামায়াতপন্থী ও দূর্নীতিবাজ পরিচালক তৌহিদুল আনোয়ারের অপসারণ ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে দূর্নীতি প্রতিরোধ মূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “দূর্নীতিমুক্ত চট্টগ্রাম চাই। ” ২৬শে নভেম্বর শনিবার বিকেল ৩টায় সংগঠনের সদস্য সচিব আওলাদ হোছাইনের সঞ্চালনায় ও আহ্বায়ক আফতাব উদ্দীনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ফোরামের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম ফয়সাল।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন ব্যাপক দূর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ, ধর্মীয় সম্প্রীতি নিয়ে বিতর্ক, সুন্নী আকীদার আলেমদের সরকারি খরচে হজ্ব পালন থেকে বঞ্চিত করাসহ নানা অনিয়ম দূর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত ইসলামিক ফাউণ্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক তৌহিদুল আনোয়ার। একটি স্পর্শকাতর সরকারি সংস্থায় এই ধরনের দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না। এই ধরণের দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারণে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান ইসলামিক ফাউণ্ডেশনের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। আমরা জানি কোন সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে সেই কর্মকর্তা স্বসম্মানে তাঁর পদ থেকে সরে যান। কিন্তু এই কর্মকর্তার বেলায় সেটার সম্পূর্ণ বিপরীত। তাই এই সংস্থাকে কলংকমুক্ত করতে চাইলে এই ধরণের দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে দ্রুত অপসারণ করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এবং ধর্ম সচিবের প্রতি উদাত্ত্ব আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের জনসভায় আসার পূর্বেই যেন এই দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা তৌহিদুল আনোয়ারকে অপসারণ করে শাস্তির আওতায় আনা হয়।

সভাপতি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ইসলামিক ফাউণ্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের জামায়াতপন্থী ও দূর্নীতিবাজ পরিচালক তৌহিদুল আনোয়ারের দূর্নীতি খুবই দুঃখজনক। জামিয়াতুল ফালাহ মসজিদের মাঠ ভাড়া দিয়ে কৌশলে বড় অংকের দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছেন তিনি । সেখানে গাড়ীর শো রুম ভাড়া দিয়ে ভাড়ার টাকা ফান্ডে জমা না করে নিজের পকেটে জমা করেন। মাহফিলের মাঠের ভাড়া ও পানির বিল আত্মসাৎ করেন।একটি ধর্মীয় সংস্থায় এই ধরনের দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালনের নৈতিক অধিকার রাখেন না। এই বার আউলিয়ার চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান ইসলামিক ফাউণ্ডেশনে কোন দূূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার ঠাঁই হবে না। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিত এই দূূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে দ্রুত অপসারণ করে ইসলামিক ফাউণ্ডেশনকে কলংকমুক্ত করা।

মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন,বিশিষ্ট সমাজকর্মী ও ঢাবি ছাত্রনেতা মোফাচ্ছিরুল হক বাচ্চু, ছাত্রনেতা ইস্কান্দার আলম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রনেতা মোঃ জুয়েল, ছাত্রনেতা এম.এ তৈয়ব প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ইসলামী ফাউন্ডেশনকে দুর্নীতি মুক্ত করা সময়ের দাবী। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে দুর্নীতির প্রতি জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়ন এর বিকল্প নেই। ইসলামী ফাউন্ডেশন একটি ইসলাম প্রচার ও দীনি প্রতিষ্ঠান হয়েও দুর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকা কোন ভাবেই কাম্য নয়। পরিচালক তৌহিদুল আনোয়ারের অপসারণ ও শাস্তির আওতায় আনার মধ্য দিয়ে ইসলামী ফাউন্ডেশনকে কলঙ্ক মুক্ত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানান।- বিজ্ঞপ্তি

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn