এপ্রিল ১৪, ২০২৪ ৬:৪৭ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় সাংবাদিকের উপর হামলায় গ্রেপ্তারের দাবিতে আল্টিমেটাম

চৌধুরী মো রায়হান, চট্টলার কণ্ঠ।
রাঙ্গুনিয়ায় দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড এর সাংবাদিক আবু আজাদের ওপর হামলার প্রতিবাদ, হামলাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)। মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে সিইউজে সভাপতি তপন চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশ থেকে প্রধান আসামি ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মহিউদ্দিন তালুকদার মোহনসহ জড়িত অন্যদের গ্রেফতারে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন সাংবাদিক নেতারা। এর মধ্যে আসামীরা গ্রেফতার না হলে পরবর্তীতে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারী দেন তাঁরা। এসময় সভাপতির বক্তব্যে সিইউজের সভাপতি তপন চক্রবর্তী বলেন, যারা সাংবাদিক আবু আজাদের ওপর এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে। মুল আসামি গ্রেফতার না করে অন্য আসামিকে গ্রেফতার করে কোনও লাভ নেই। পুলিশ প্রশাসন যদি হামলাকারী ও নির্দেশদাতাকে গ্রেফতার না করে ৩ দিন পর আমরা পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা করবো। সিইউজের সাধারণ সম্পাদক ম. সামসুল ইসলাম বলেন, আবু আজাদের ওপর যে বর্বোরচিত হামলা চালানো হয়েছে সেটি পুরো সাংবাদিক সমাজ এবং সাংবাদিকতার ওপর হামলা। এই হামলাকে আমরা কোনভাবেই মেনে নিতে পারিনা। তিনি আরো বলেন, ইউপি মেম্বার মোহন সাংবাদিক আবু আজাদের মাথায় যে অস্ত্র ঠেকিয়েছে অবিলম্বে তা জব্দ করতে হবে। এই হামলার সঙ্গে জড়িত ইউপি চেয়ারম্যান এবং মেম্বারসহ সকলকে যদি গ্রেফতার করা না হয় তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নিতে চট্টগ্রামের সাংবাদিক সমাজ রাজপথে থেকে প্রশাসনকে বাধ্য করবে। সিইউজে’র যুগ্ম সম্পাদক সাইদুল ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি শহীদ উল আলম, সিইউজে সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, বিএফইউজে’র সাবেক সহ সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজে’র সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী, বিএফইউজে’র নির্বাহী সদস্য আজহার মাহমুদ, টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শফিক আহমেদ সাজিব এবং দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড এর চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান শামসুদ্দীন ইলিয়াস। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সিইউজে’র সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, সহ সভাপতি অনিন্দ্য টিটো, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মহরম হোসাইন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক তাহের ও এসএম ইফতেখারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সরওয়ার কামাল, সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহমেদ কুতুব ও ইফতেখার ফয়সাল, নির্বাহী সদস্য আলাউদ্দিন হোসেন দুলাল, সুপ্রভাত ইউনিট প্রধান স ম ইব্রাহিম, প্রতিনিধি ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত প্রধান সোহেল সরওয়ার। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলাম, গ্রন্থাগার সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলিউর রহমান, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক আইয়ুব আলী, নির্বাহী সদস্য শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, মহসীন চৌধুরী, সাবেক অর্থ সম্পাদক তাপস বড়ুয়া রুমু, চট্টগ্রাম ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রাজেশ চক্রবর্তী, টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এনামুল হক, সাধারণ সম্পাদক দীপঙ্কর দাশ, সিইউজে’র সদস্য কুতুব উদ্দিন চৌধুরী, সহিদুল ইসলাম সহিদ, আল রাহমান, সুবল বড়ুয়া, রাহল কান্তি দাশ, ওমর ফারুক, হুমায়ুন মাসুদ, অনুপম শীল, চম্পক চক্রবর্তী, কাঁকন দাশ, নয়ন চক্রবর্তী, ইফতেখার মারুফ, ইকবাল হোসেন, সনজীব দে বাবু, মিজানুর রহমান ইউসুফ, নুর মোহাম্মদ রুবেল, সুজন আচার্য্য, কমল দাশ, বাচ্চু বড়ুয়া, এমএ হান্নান কাজল, এমরাউল কায়েস মিঠু। গত রোববার সকালে রাঙ্গুনিয়ায় অবৈধ ইটভাটার ছবি তোলায় ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মহিউদ্দিন তালুকদার মোহনসহ ৫-৬ জন পিস্তল ঠেকিয়ে সাংবাদিক আবু আজাদকে মারধর করে। এরপর তার কার্যালয়ে বেঁধে রেখে নির্যাতন করে। তার মোবাইল ফোন ভেঙে ফেলে এবং মানিব্যাগ ও আইডি কার্ড-সব কেড়ে নিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। এরপর ওই সাংবাদিকের পকেটে মোহন নিজের ভিজিটিং কার্ড ঢুকিয়ে দিয়ে ক্ষমতা থাকলে কিছু করতে বলে হুমকিও দেয়। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন, ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী, ইটভাটার ম্যানেজার কামরান, মোহনের সহযোগী কাঞ্চন তুড়ির নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫-৭ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী সাংবাদিক আবু আজাদ।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn