জুলাই ১৯, ২০২৪ ২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় দুই সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

লোহাগাড়ায় রীনা খাতুন (৩০) নামে দুই সন্তানের এক জননীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ বুধবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৯টার দিকে সদর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের রশিদের পাড়ার এক ভাড়া বাসার রান্নাঘরে স্ত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান স্বামী।

নিহত রীনা খাতুন পাবনা সদর উপজেলার আতাইকুলা ইউনিয়নের বনগ্রাম এলাকার সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী। তিনি পেশায় একটি ওষুধ কোম্পানীর মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ। নিহতের বাপের বাড়ি পাবনা সদরের পৌর এলাকার হাজিরহাট এলাকায়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহ আলম লিটন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, প্রায় ৫ মাস পূর্ব থেকে চাকরির সুবাদে রশিদের পাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছেন সিরাজুল ইসলাম। প্রায় এক মাস পূর্বে তিনি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছিলেন। এরপর থেকে স্ত্রীকেও ভাড়া বাসায় নিয়ে আসেন। বড় সন্তান নানার বাড়িতে ও অপর সন্তান মা-বাবার সাথে ছিল। গতকাল মঙ্গলবার দিনগত রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষে সন্তানকে নিয়ে স্বামী-স্ত্রী একসাথে ঘুমিয়ে যায়।

সকালে নিহতের স্বামী ঘুম থেকে উঠে আধাপাকা ভাড়া বাসার রান্নাঘরে ছাদের লোহার এঙ্গেলের সাথে গলায় ওড়না প্যাচিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় স্ত্রীকে দেখতে পান। পরে বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়। আত্মহত্যার সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে, প্রতিবেশীর কাছ শুনেছেন তারা স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায় সময় কথা কাটাকাটি হতো। হয়তো স্বামী-স্ত্রীর মনোমালিন্যের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহতের স্বামী সিরাজুল ইসলাম জানান, তার স্ত্রী ২ মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা। স্ত্রীর সাথে কোনোদিন ঝগড়া হয়নি। প্রতিদিনের মতো রাতে একসাথে খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে যান। সকালে ঘুম থেকে উঠে রান্নাঘরে গিয়ে স্ত্রীকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে বিষয়টি আশপাশের লোকজনকে জানানো হয়।

লোহাগাড়া থানার এসআই রুহুল আমিন জানান, খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধারপূর্বক সুরতহাল লিপিবদ্ধ করা হয়। নিহতের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn