এপ্রিল ১৭, ২০২৪ ১১:৩৬ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের ছড়িয়ে যাচ্ছে ডেঙ্গু

২০২২ সালে গত বছর  চট্টগ্রামে ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেয়  আগস্টের পর। তবে এবার জুনের আগেই ডেঙ্গুর  প্রকোপ শুরু হয়েছে।  এ প্রকোপ বেড়েই চলেছে। প্রকোপ শুরু হতেই ডেঙ্গুতে পরপর মৃত্যুর ঘটনা এবার উদ্বেগও বাড়াচ্ছে। চলতি বছর এখন পর্যন্ত মোট ৭ জন ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রামে। এর মাঝে তিন জনের মৃত্যু হয় জানুয়ারিতে। আর চারজনেরই মৃত্যু হয়েছে ৫ দিনের ব্যবধানে, গত ১৪ জুন থেকে ১৮ জুনের মধ্যে। মৃতের তালিকায় শিশু থেকে শুরু করে কিশোর, তরুণ, মধ্যবয়সী ও বৃদ্ধ কেউ বাদ নেই। টানা কয়েকদিন ধরে পরপর মৃত্যু ভাবিয়ে তুলেছে স্বাস্থ্য বিভাগকে। ডেঙ্গুতে পরপর এই মৃত্যুর ঘটনা উদ্বেগজনক হিসেবে দেখছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী। এভাবে নিয়মিত মৃত্যুর ঘটনা ডেঙ্গু পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আভাস দিচ্ছে বলে মনে করেন তিনি। এজন্য সকলকে সতর্ক হওয়ার পরামর্শও দিয়েছেন সিভিল সার্জন।

ডেঙ্গুতে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে চিকিৎসকরা যা বলছেন : জ্বরে ভুগলেও ডেঙ্গু শনাক্তে দেরি এবং রোগীকে হাসপাতালে আনতে বিলম্বের কারণেই আক্রান্তদের মাঝে মৃত্যুর হার বাড়ছে বলে মনে করেন চিকিৎসকরা।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাকিল ওয়ায়েজ বলছেন, হাসপাতালে আসা রোগীদের ক্ষেত্রে আমরা যেটি দেখছি, বেশ কিছুদিন জ্বরে ভুগলেও ডেঙ্গুসহ কোন টেস্ট না করে রোগীকে বাসায় রাখা হচ্ছে। এরপর অবস্থা খুব খারাপ হলে তখন রোগীকে হাসপাতালে আনা হচ্ছে। বেশির ভাগ রোগীর ক্ষেত্রে আমরা এরকম তথ্য পাচ্ছি। শুধু দেরি করার কারণেই এবং শুরু থেকে যথাযথ চিকিৎসা না পাওয়ায় অনেক রোগীর মৃত্যু হচ্ছে।

চট্টলার কণ্ঠকে একই কথা বলছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরীও। তিনি আজাদীকে বলেন, অন্যান্য দেশেও ডেঙ্গুর প্রকোপ আছে। কিন্তু সেসব দেশে মৃত্যুর হার খুবই কম। আমাদের এখানে মানুষের অসচেতনতায় মৃত্যু বাড়ছে।

৪/৫ দিন জ্বরে ভুগলেও মানুষ ডেঙ্গু টেস্ট করায় না। ফলে অবস্থা খারাপ হলে তখন হাসপাতালে নেয়া হয়। অর্থাৎ হাসপাতালেও নেয়া হচ্ছে দেরিতে। আর এই বিলম্বের কারণেই অনেক রোগীর মৃত্যু হচ্ছে।

ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশুর মৃত্যুর কারণ হিসেবে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সনত কুমার বড়ুয়া আলাপকালে চট্টলার কণ্ঠকে  বলছেন– বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিলেও ঠিকমতো বলতে না পারায় আক্রান্ত শিশুদের অবস্থা দ্রুত খারাপের দিকে যায়। দেরি হয়ে গেলে আর রিকভার করা সম্ভব হয়না। এতে অনেক শিশুর অকালে মৃত্যু হচ্ছে।

এই চিকিৎসকের মতে, বিভিন্ন জটিলতা থাকলেও শিশুরা হয়তো ঠিকমতো বলতে পারছে না। যার কারণে শিশুর জ্বর হলেও অভিভাকরা দেরিতে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হচ্ছেন। অথবা অবস্থা খুব খারাপ হলে তখনই শিশুকে হাসপাতালে আনা হচ্ছে। এসব কারণে হাসপাতালে আনার পরও অনেক শিশুকে বাঁচানো সম্ভব হচ্ছেনা। শিশুরা যেহেতু সবকিছু ঠিকমতো বুঝাতে অপারগ, সবচেয়ে ভালো হয় শিশুর জ্বরের পরপরই ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া। এ বিষয়ে অভিভাবকদের আরো বেশি সচেতন ও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসকের।

ডাক্তাররা  বলছেন, তীব্র জ্বর (যা টানা ৪/৫ দিন অথবা একবার কমে আবারো আসতে পারে), বমি বমি ভাব, পেট ব্যথা, মাথা ব্যথা ও শরীরে বিভিন্ন জায়গায় লালচে দাগ বা র‌্যাশ দেখা দিতে পারে। এসবই ডেঙ্গু রোগের লক্ষণ।

জ্বরের প্রথম তিন দিনের মধ্যে অবশ্যই ডেঙ্গু (এনএস–ওয়ান) টেস্ট করার পরামর্শ দিয়ে সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী ও চমেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাকিল ওয়ায়েজ বলছেন, পরীক্ষায় ডেঙ্গু ধরা পড়লেও সাথে সাথে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন পড়েনা। তবে কিছু অ্যালার্মিং উপসর্গ দেখা দিলে রোগীকে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে। অ্যালার্মিং উপসর্গের মধ্যে রয়েছে– তীব্র জ্বরের সাথে পেট ব্যথা, বমি, রক্তচাপ কমে যাওয়া, শরীরে বিভিন্ন জায়গায় লালচে দাগ বা র‌্যাশ, প্রস্রাব–পায়খানায় বা অন্য কোনোভাবে রক্ত যাওয়া। এসব অ্যালার্মিং উপসর্গ থাকলে রোগীকে অবশ্যই দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে।

জ্বর দেখা দিলেই ডেঙ্গু টেস্টের পাশাপাশি রক্তের কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (সিবিসি) পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দিয়ে চিকিৎসকরা বলছেন, বিশেষ করে প্লাটিলেট ও হেমাটোক্রিট (এইচসিটি) পরীক্ষা করা জরুরি। জ্বরের তিন দিনের মধ্যেই অবশ্যই এই টেস্ট করা প্রয়োজন। ডেঙ্গু পজিটিভ হলে অবশ্যই প্লাটিলেট ও হেমাটোক্রিট (এইচসিটি) পরীক্ষা করে দেখতে হবে। প্লাটিলেট দেড় লাখের নিচে নামলে এবং পরপর পরীক্ষায় প্লাটিলেট দ্রুত নামতে থাকলে রোগীকে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি করানোর পরামর্শ সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরীর। এছাড়া এইচসিটি বা হিমাটোক্রিট স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে অতিমাত্রায় বেড়ে গেলে বা কমে গেলে রোগীর অবস্থার অবনতি হয়েছে বলে ধরে নিতে হবে। তখনও রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে বলে জানান সিভিল সার্জন।

ডেঙ্গু ধরা পড়লে অনেকেই রোগীকে ব্যথানাশক ওষুধসহ গলির দোকান থেকে ইচ্ছেমতো ওষুধ কিনে খাওয়ান। এটি রোগীর জন্য মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ বলছেন চিকিৎসকরা। অনেকেই এন্টিবায়োটিক ওষুধও খাওয়ান। যা উচিত নয় জানিয়ে চমেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আব্দুর সাত্তার বলেন, ডেঙ্গু শনাক্ত হলে রোগীকে ব্যথানাশক কোনো ওষুধ খাওয়ানো যাবেনা। জ্বর থাকলে শুধু প্যারাসিটামল খাওয়ানো যাবে। আর রোগীকে তরল জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়াতে হবে। সম্পূর্ণ বিশ্রামে রাখতে হবে।

ডেঙ্গু আক্রান্তদের টানা ৫/৬ দিন তীব্র জ্বর থাকতে পারে জানিয়ে মেডিসিনের এই চিকিৎসক বলেন, ৫/৬ দিন পর জ্বর নেমে যেতে পারে। তবে জ্বর নামলেও জ্বরের ৬ থেকে ১০ দিনের সময়কালটি রোগীর জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এসময় রক্তের প্লাটিলেট অতিমাত্রায় কমে যেতে পারে। ফলে এই সময়ে অবশ্যই বাড়তি সতর্কতা জরুরি। প্রয়োজনে রোগীকে অবশ্যই চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে রাখতে হবে।

আক্রান্ত রোগীকে মশারির ভেতর রাখতে হবে জানিয়ে অধ্যাপক ডা. আব্দুর সাত্তার চট্টলার কণ্ঠকে  বলেন, কোন এডিস মশা আক্রান্ত রোগীকে কামড়ানোর পর অন্য কাউকে কামড়ালে তিনিও আক্রান্ত হন। এজন্য পরিবারের একজন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলে বাকিদেরও আক্রান্ত হতে দেখা যায়। তাই আক্রান্ত রোগীকে অবশ্যই মশারির ভেতর রাখতে হবে। এর সাথে যুক্ত করে সিভিল সার্জন বলেছেন, ডেঙ্গু চিকিৎসার চেয়ে প্রতিরোধ করাটাই উত্তম। অর্থাৎ যাতে ডেঙ্গু না হয়, আমাদের সে ব্যবস্থাই করতে হবে। দিনের বেলায়ও মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে। আর মশা নিধন সবচেয়ে জরুরি। এটি সিটি কর্পোরেশনের কাজ। কিন্তু বাসিন্দা হিসেবে আমাদের সকলকে যার যার অবস্থান থেকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। মশা যাতে বংশ বিস্তার করতে না পারে সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।

ডেঙ্গু ধরা পড়লে করণীয় সম্পর্কে চমেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আব্দুর রব মাসুম বলছেন, আক্রান্ত রোগীকে বেশি বেশি তরল জাতীয় (পানীয়) খাবার খাওয়াতে হবে। এটাই মূলত ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসা। জ্বর থাকলে শুধু সাধারণ প্যারাসিটামল চলবে। আক্রান্ত রোগীর রক্ত (সিবিসি) পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়মিত রক্তের প্লাটিলেট, এইচসিটিসহ কিছু ইনডিকেটর মনিটর করতে হবে। এটা খুবই জরুরি। রোগীকে এসময় তরল জাতীয় খাবার (জুস, ডাবের পানি, স্যালাইন, স্যুপ প্রভৃতি) বেশি বেশি খাওয়াতে হবে। পরিবারের কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন এই চিকিৎসক।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকালের আগের ২৪ ঘন্টায়ও নতুন করে ১২ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে। এ নিয়ে চলতি মৌসুমে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা তিনশ ছাড়িয়ে ৩০৯ জনে দাঁড়িয়েছে। আগের ২৪ ঘন্টায়ও আক্রান্ত এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। ১৬ বছরের কিশোরী ওই রোগী শনিবার চমেক হাসপাতালে মারা যায়। এর আগের চার দিনে আরো তিন জনের মৃত্যু হয়েছিল। আর সবমিলিয়ে এবছর ডেঙ্গু আক্রান্ত মোট ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রামে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn