এপ্রিল ১৭, ২০২৪ ১২:৫৯ অপরাহ্ণ

অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে প্রাণ গেল ৩০ জন রোহিঙ্গার

মিয়ানমারের রাখাইন থেকে পালিয়ে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে নৌকা ডুবে নিহত ২৩ রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্য ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, এ ঘটনায় আরও ৩০ জন নিখোঁজ রয়েছে; দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফিরেছে আটজন।

বেঁচে ফেরা ব্যক্তিরা বলছে, তারা সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করছিল। তাদের নৌযানে ৫০ জনের মতো ছিল কিন্তু রবিবার নৌযানটির ক্রুরা যাত্রীদের ফেলে সরে যায়।

মিয়ানমারে জাতিগত নিধনের শিকার সংখ্যালঘু হাজারো রোহিঙ্গা প্রতি বছর উত্তাল সাগরপথে বিপজ্জনক পথ পাড়ি দিয়ে মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা করে।

উদ্ধারকারী একটি দল বিবিসিকে বলেছে, এ সপ্তাহে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে ডুবে মারা যাওয়াদের মধ্যে ১৩ জন নারী ও ১০ জন পুরুষ যারা সকলেই রোহিঙ্গা মুসলিম।

মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর গণহত্যা ও নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৭ সালে ঘরবাড়ি ছেড়ে লাখ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নেয় বাংলাদেশে। যেসব রোহিঙ্গা মিয়ানমারে রয়েছে, ২০২১ সালে দেশটিতে সেনাঅভ্যুত্থানের পর থেকে তারাও পালিয়ে অন্য দেশে আশ্রয় নেওয়ার পথ খুঁজছে।

সবশেষ দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা ব্যক্তিরা বলছে, রাখাইনের রাজধানী সিত্তের কাছে সাগরে তারা বিশাল ঢেউয়ের মুখে পড়ে। সেই সময় ওই নৌযান ছেড়ে চলে যায় পাচারকারীরা। মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য প্রত্যেক রোহিঙ্গা ৪ হাজার ডলার করে দিয়েছিল তাদের।

নিহতদের লাশ অন্য নৌযানগুলো তুলে নিয়ে যায়; অনেকের লাশ সাগরে ভেসে যায়।

মাছ ধরা ট্রলারে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করে আন্দামান সাগরে যাত্রা সবসময়ই বিপজ্জনক। বিশেষ করে এই বর্ষার সময় সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ থাকে।

অধিকাংশ রোহিঙ্গা মে থেকে অক্টোবর মাসে এই সাগরপথ পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করে। বিপজ্জনক জেনেও তারা সেই ঝুঁকি নেয়। সহায়সম্বল বিক্রি করে মাতৃভূমি ছেড়ে পালিয়ে অন্য দেশে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn