জুলাই ১৯, ২০২৪ ২:১৪ পূর্বাহ্ণ

নিয়ন্ত্রণহীন হায়েচ কারের ধাক্কায় প্রাণ গেল এক ওসির

মোশাররফ হোসেন।

ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কের মীরসরাইয়ে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীসংকৈল থানার সদ্য বিদায়ী ওসি জাহিদ ইকবাল (৪৬)। তিনি বদলি হয়ে সর্বশেষ চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখায় পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত বলে জানান বর্তমান ওসি মো. গুলফামুল ইসলাম মন্ডল। একই দুর্ঘটনায় ওসি জাহিদের ছেলে তাহসিন, দুই বোন, ভাগ্নেসহ আরও ৭ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮ টার দিকে উপজেলার নিজামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। ওসি জাহিদ ইকবালদের বহনকারী হাইচ গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারালে কালভার্টে ধাক্কা দেয়। এ সময় পেছন থেকে আরেকটি প্রাইভেট কার এসে সজোরে ধাক্কা দেয় হাইচকে। ফলে দুমড়েমুচড়ে যায় হাইচ। আর ভেতরে থাকা ওসি জাহিদ ইকবাল ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান। নিহত ওসি জাহিদ ইকবাল বাংলাদেশ পুলিশের ২৭তম ব্যাচের ক্যাডেট (এসআই)। ওইদিন বিকেলে সীতাকুণ্ড মডেল থানার সামনে প্রথম জানাযা শেষে কফিন নিয়ে রওনা হওয়া পুলিশ দল শুক্রবার সকালে রাণীশংকৈল থানায় পৌঁছায়। সেখানে বেলা ১১টায় নামাজে জানাযা শেষে তাঁর দাফন সম্পন্ন হয় বলে জানা গেছে।

নিহত জাহিদ ইকবালের স্ত্রীও একজন পুলিশ পরিদর্শক। তিনি চট্টগ্রাম মেট্রোতে কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক মর্জিনা আক্তারের ব্যাচমেট। দুর্ঘটনার কথা শুনে স্পটে ছুটে যান মর্জিনা আক্তার। তিনি বলেন, নিহত জাহিদ ইকবাল তার দুই বোন ও বোনের ২ ছেলে এবং নিজের ছেলে তাহসিনকে নিয়ে কুষ্টিয়া থেকে বান্দরবান যাচ্ছিলেন। দুই সন্তানের জনক জাহিদের স্ত্রী রেশমাও পুলিশ পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত আছেন। স্ত্রী রেশমা ও তার মেয়ে এই ট্যুরে ছিলেন না। আহত ছেলে তাহসিন শঙ্কামুক্ত আছেন। ওসি জাহিদের দুই বোনের অবস্থাও আশংকাজনক। তারা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নিজামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র

এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে কালভার্টের সাথে ধাক্কা দেয় পুলিশ কর্মকর্তা জাহিদ ইকবালদের বহনকারী হাইচ গাড়িটি। পরে ওই হাইচ গাড়িটি সড়কে পড়ে থাকলে পেছন থেকে আরেকটি প্রাইভেটকার এসে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে হাইচের সামনের অংশ দুমড়েমুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই হাইচে থাকা ওই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে সীতাকুণ্ডের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যান এবং প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কয়েকজনকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। মীরসরাই থানার ওসি কবির হোসেন চট্রলার কণ্ঠকে  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn